ঢাকাবৃহস্পতিবার, ১১ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিক্ষা সফরে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মদপান, দুই শিক্ষক বরখাস্ত

নিউজ ডেস্ক | সিটিজি পোস্ট
ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪ ১১:০৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাদারীপুরের শিবচরে শিক্ষা সফরের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মদপানের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি সাময়িক বরখাস্ত করেছে।

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।


বরখাস্তকৃত দুই সহকারী শিক্ষক হলেন- ওয়ালিদ হোসেন ও আল-নোমান।

জানা গেছে, শিবচরের বন্দরখোলা ইউনিয়নের শিকদার হাট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে গত শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষাসফরে যান বিদ্যালয়ের ৪১ জন শিক্ষার্থী ও ১৬ জন শিক্ষক। শিক্ষা সফরের উদ্দেশে নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁও যাওয়ার সময় পথিমধ্যে বাসের মধ্যেই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মদপান করেন। এ সময় শিক্ষকদেরও শিক্ষার্থীদের সাথে মদের বোতলসহ দেখা গেছে। এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় উঠে।

ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, শিক্ষা সফরের বাসে বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. ওয়ালিদ হোসেনের পাশে একজনের হাতে একটি বিদেশি মদের বোতল। মদ ঢালার চেষ্টা করছেন কয়েকজন। এছাড়াও মদের বোতল হাতে শিক্ষার্থীদের উল্লাস করতে দেখা গেছে। গানের তালে তালে নাচছে শিক্ষার্থীরা। বাসের মধ্যে একাধিক মদের বোতল ছিল বলে জানা গেছে। বাস ছাড়ার পর মদ পানের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েকজন শিক্ষকও শিক্ষার্থীদের সাথে মদ পান করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
 

সোমবার(২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির এক জরুরি সভায় প্রাথমিক ভাবে অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করেছে ম্যানেজিং কমিটি। সন্ধ্যায় তাদেরকে সাময়িক বরখাস্তের চিঠি দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলাউদ্দিন শিকদার।

তিনি বলেন, ‘ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত থাকার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় দুই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট দফতরে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হবে।’

এদিকে বরখাস্ত হওয়ার পর অভিযুক্তদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তারা এ বিষয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ ঘটনায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এক কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি অভিযুক্ত দুই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করেছে।