ঢাকারবিবার, ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সোমবার সিলেট বিভাগে বৃষ্টির তীব্রতা কিছুটা কমতে পারে

স্টাফ রিপোর্টার | সিটিজি পোস্ট
জুন ১৯, ২০২২ ২:৪০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে। ফলে আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বত্র বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বন্যায় আক্রান্ত সিলেট বিভাগে বৃষ্টির তীব্রতা কিছুটা কমতে পারে।

 

রবিবার (১৯ জুন) আবহাওয়া অধিদপ্তরের সর্বশেষ পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়ার সঙ্গে প্রবল বিজলী চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। দেশের কোথাও কোথাও ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

 

গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত হয়, এর পরিমাণ ছিল ৩০৪ মিলিমিটার। এছাড়া ঢাকা বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ নিকলিতে ৫২, ময়মনসিংহে ৩৮।

 

চট্টগ্রাম বিভাগের প্রায় সব এলাকায় বৃষ্টি হয়েছে, এর মধ্যে কক্সবাজারে ৮৪, সীতাকুণ্ডে ৭৫, রাঙ্গামাটিতে ৬৭, কুতুবদিয়া ৫৯, টেকনাফে ৫১ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়। রাজশাহী বিভাগের মধ্যে ঈশ্বরদীতে ৪, রংপুর বিভাগের মধ্যে তেতুলিয়ায় ৯৪, খুলনার মোংলায় ২৩ এবং বরিশালে সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে ভোলায় ১৪ মিলিমিটার।

 

দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ৩৪.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সীতাকুণ্ডে ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 

এদিকে, বাংলাদেশের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, “ভারতের মেঘালয় ও আসামে বৃষ্টি হলে বাংলাদেশে উজান থেকে পানি আসা বন্ধ হবে না। সিলেট বিভাগের বন্যা পরিস্থিতির দ্রুত উন্নতির আশা নেই। দেশের উত্তরাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতি আগামী দুই দিনের মধ্যে আরও অবনতির আশঙ্কা রয়েছে।”

 

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের পর্যবেক্ষণ বলছে, সিলেট বিভাগের বন্যা এর আগের সব রেকর্ড ভেঙেছে। উজান থেকে আসা ঢলে এই বিভাগের বেশির ভাগ এলাকা এখন পানির নিচে। সুনামগঞ্জে বিদ্যুৎ নেই, সুপেয় পানি নেই, মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক নেই। মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে।